মাত্র ১৫ দিনে রেকর্ড পরিমাণ ডেলিভারি সম্পন্ন করেছে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি

184

দেশ সেরা ই-কমার্স সাইট ‘ ইভ্যালি ‘ গত ১৫ দিনে সারা দেশে ২০ লক্ষের অধিক অর্ডারের ডেলিভারি সম্পন্ন করেছে । সম্প্রতি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ই-কমার্স নীতিমালা অনুসরণ করে গ্রাহকদের সেবার মান নিশ্চিত করতেই লকডাউন পরিস্থিতির মধ্যেও ১৫ দিনে প্রায় ২০ লক্ষের অধিক ডেলিভারি নিশ্চিত করেছে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানটি। ডেলিভারি সম্পন্ন করতে নির্দিষ্ট সময়ের তুলনায় বেশি সময় নেয়ায় সম্প্রতি গ্রাহকদের মধ্যে দেখা দিলেও ভেলিভারি বুঝে পেয়ে বর্তমানে খুশি গ্রাহকরা।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সম্পূর্ণ নতুন এবং আধুনিক হওয়ায় ই-কমার্স সাইটের প্রতি স্বভাবতই সবার আগ্রহ একটু বেশি দেখা যায়।‌ কোভিড ১৯ মহামারির কারণে সকলে যখন গৃহবন্দির নতুন নিয়মে আটকা পড়ে যায়, তখন জনজীবনকে নতুন পথ দেখায় ই-কমার্স সাইট গুলো। যেখানে ঘরে বসেই পাওয়া যায় নিত্য প্রয়োজনীয় সকল প্রকার দ্রব্যাদি। তবে সেসকল কমার্স সাইটগুলোর মধ্যে সর্বনিম্ন মূল্যে পণ্য সরবরাহ করায় খুব অল্প সময়ের মধ্যেই জনপ্রিয়তার শীর্ষে উঠে যায় ই কমার্স সাইট ‘ইভ্যালি’। সর্বনিম্ন মূল্যে পণ্য সরবরাহের পাশাপাশি ‘ইভ্যালি’তে ছিল ফ্রাইডে স্লাইকোনের মতো আকর্ষণীয় নানা রকম অফার।

যার ফলে ‘ ইভ্যালি ‘ -এর গ্রাহক চাহিদা ছিল ব্যাপক। অতিরিক্ত গ্রাহক চাহিদার কারণে সময়মতো পণ্য ডেলিভারি দিতে হিমশিম খেতে হয় প্রতিষ্ঠানটিকে। যার ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব ছড়িয়ে পড়ে গ্রাহকদের মাঝে। সে নেতিবাচক প্রভাব বাংলাদেশ ব্যাংক এবং অর্থমন্ত্রণালয়ের ই কমার্স নিয়ে হঠাৎ তো তোরজোড়ের মতো যেন তেলেবেগুনের মতোই জ্বলে ওঠে। পর‌বর্তীতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রণীত নীতিমালা অনুযায়ী ই-কমার্স সাইট পরিচালনার জন্য এবং গ্রাহকদের জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে জুলাই মাসের প্রথম‌ ১৫ দিনেই ২০ লক্ষের অধিক‌ অর্ডারের ডেলিভারি সম্পন্ন করেছে ই-কমার্স সাইটটি। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ হতে জানানো হয়েছে যে সময় মত সরবরাহ করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছে প্রতিষ্ঠান অফিসিয়ালসরা। সেই সাথে সময় মতো ডেলিভারি সম্পন্ন করার জন্য গ্রাহকদের কাছে সাহায্য কামনা করা হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ হতে।