ফেরদৌস রহমান, নারায়ণগঞ্জ।

লকডাউন শিথিল করে দেশের যানবাহন সহ শপিংমল, মার্কেট, দোকানপাট ও বিভিন্ন হাটবাজার খোলার অনুমতি প্রদান করেছে সরকার। গত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে যে, ১৫ জুলাই বৃহস্পতিবার থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত সরকার ঘোষিত লকডাউন শিথিল থাকবে। বন্ধ থাকা সবকিছু নিময় নীতি মেনে চলবে। সবকিছুর পিছনে কারণ কেবল আসছে পবিত্র ঈদ-উল-আযহা-কে কেন্দ্র করে। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নোটিশে বলা হয়েছে, আগামী ২১ তারিখ দেশে অনুষ্ঠিত হবে পবিত্র ঈদ-উল-আযহা অর্থাৎ কুরবানির ঈদ।

তাই প্রশাসনিক তৎপরতায় এবার দেশের বিভিন্ন জায়গায় বসবে কুরবানির পশু হাট। নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার উপজেলায় শর্তসাপেক্ষে বসবে পশু হাট। সাধারণ লোকজনকে মাস্ক পরিহিত অবস্থায় স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে যেতে হবে হাটে। এবারের হাটে দূরত্ব বজায় রেখে হাটে নেওয়া পশুগুলোকে আলাদা আলাদা করে বাঁধতে হবে। কোনোভাবেই গাদাগাদি অবস্থায় হাট বসানো যাবে না। হাট তত্ত্বাবধানে থাকবে প্রশাসন ও পুলিশ কর্মকর্তারা। বেশি ভীড় জমানো যাবে না হাটগুলোতে। গরু-ছাগল কিনতে আসা ব্যক্তি ব্যতিত বহিরাগত মানুষদের প্রবেশ নিষিদ্ধ।

বিক্রেতা ও ক্রেতা সহ কম সংখ্যক লোকজন হাটে যেতে পারবে। হাটে বসানো যাবে না দোকানপাট। জরুরি ব্যবস্থায় থাকবে আড়াইহাজার থানার পুলিশ টিম। আড়াইহাজার থানার ওসি ( অফিসার ইন চার্জ) জনাব আনাস আমাদেরকে জানান যে, ” এবার ঈদের পশু হাটে অতিরিক্ত মানুষজনের সমাগম কমাতে আমাদের পুলিশ দায়িত্বে থাকবে। আমরা একদিনে যে কয়টি হাট বসবে, সেখানে বিভিন্ন সময় তৎপরতা চালাবো! বেশি মানুষের ভীড় হতে দেওয়া যাবে না। হাটে নিরাপত্তায় সার্বক্ষণিক থাকছে আড়াইহাজার পুলিশ।

” আড়াইহাজার উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ( ইউএনও) জনাব সোহাগ হোসেন জানান, ” কুরবানির ঈদ সকল মুসলিমদের জন্য একটি আলাদা আমেজ! এই ঈদে মানুষ গরু-ছাগল ক্রয় করে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য কুরবানি দেয়। তাই সরকার সেসব বিষয় চিন্তা করে, ঘোষিত লকডাউন শিথিল করেছে। এবার ঈদের নামাজও ঈদগাহে পড়তে পারবে মানুষজন। তাই সর্বোচ্চ নিরাপত্তার মাধ্যমে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বসছে হাট। হাটে পুলিশ দায়িত্বে থাকবে।

কোনোপ্রকার বিধিনিষেধ অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে আমরা কঠিন আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।” গতকাল আড়াইহাজারের ঐতিহাসিক রামচন্দ্রী পশু হাট দিয়ে শুরু হয়েছে এবারের কুরবানির পশু হাটগুলো। হাট বসবে ঈদের আগের দিন অর্থাৎ ২০ জুলাই মঙ্গলবার পর্যন্ত।